নড়িয়ায় পদ্মা নদীর গর্ভে সাধুর বাজার লঞ্চঘাট বিলীন : উদ্ধার-১৪, নিখোঁজ-৭

শরীয়তপুরন প্রতিনিধি :: শরীয়তপুরের নড়িয়ায় পদ্মা নদীর গর্ভে ৫টি ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানসহ সাধুর বাজার লঞ্চঘাট বিলীন হয়ে গেছে। মঙ্গলবার দুপুরে এ ঘটনা ঘটে। এ সময় ঘটনাস্থলে থাকা অন্তত ৩৫/৪০জন পদ্মা নদীতে পড়ে যায়। স্থানীয়রা ১৪ জনকে উদ্ধার করে নড়িয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেছে। এ ঘটনায় ৭ জন নিখোঁজ রয়েছে এবং নিখোঁজের আরও বাড়তে পারে বলে জানিয়েছেন ফায়ার সার্ভিস, উপজেলা প্রশাসন।

শরীয়তপুর ফায়ার সার্ভিস, নড়িয়া উপজেলা প্রশাসন ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, দুই দিন ধরে পদ্মার ভাঙন আরও তীব্র আকার ধারণ করে। মঙ্গলবার দুপুরে নড়িয়ার কেদারপুর ইউনিয়নের সাধুরবাজার লঞ্চঘাট এলাকার বিশাল অংশ ধসে পড়ে এবং মুহুর্তেই নদীগর্ভে বিলীন হয়ে যায়। এসময় লঞ্চঘাট এলাকায় থাকা ৬/৭ টি ক্ষুদ্র ব্যবসা প্রতিষ্ঠান এ সময় নদীতে তলিয়ে যায়। সেখানে স্থানীয় ব্যবসায়ী সহ প্রায় ৩৫/৪০ জন লোক ছিল। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত ৭ জন নিখোঁজ ব্যক্তির পরিচয় পাওয়া গেছে। তারা হলেন, নাসির হাওলাদার, নাসির বয়াতী, মঞ্জুর ছৈয়াল, অন্তু মকদম, মোশারফ চোকদার ও আইটেল মোবাইল কোম্পানীর এরিয়া ম্যানেজার আল আমিন ও স্থানীয় দোকানদার গুবি দাস। এখন পর্যন্ত ১৪ জনকে উদ্ধার করে নড়িয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। এদের মধ্যে ৪ জনকে উন্নত চিকিৎসার জন্য শরীয়তপুর সদর হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।


প্রত্যক্ষদর্শী সাধুরবাজার লঞ্চঘাট এলাকার জসিম হাওলাদার বলেন, দুপুরে হঠাৎ করেই দোকান ঘরটি কেঁপে ওঠে। মুহুর্তেই দোকান ঘর সহ পানিতে তলিয়ে যাই। পরে পানির উপরে ভেসে উঠলে স্থানীয়রা কয়েকজনকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে আসে। দুর্ঘটনার সময় সেখানে প্রায় ৩৫/৪০ জন লোক, ৩/৪টি মোটর সাইকেল, ২টি ট্রলি গাড়ী ছিল।

এ ব্যাপারে ফায়ার সার্ভিসের উপ-সহকারী পরিচালক নিয়াজ আহমেদ বলেন, লঞ্চঘাট এলাকা নদীতে বিলীন হয়ে যাওয়ার ঘটনায় এখন পর্যন্ত ৭ জন নিখোঁজ রয়েছে। তবে এই সংখ্যা বাড়তেও পারে। ১৪ জনকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। নিখোঁজদের উদ্ধারে ফায়ার সার্ভিস, পুলিশ সহ স্থানীয়রা সর্বাত্মক চেষ্টা চালাচ্ছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এ জাতীয় আরো খবর..

ফেসবুকে আমরা...