সিরিয়ার বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক নীতিমালা অমান্য করে হামলা চালিয়েছে :: রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী

চ্যানেল নিউজ বিডি ডটকম :: আমেরিকা আন্তর্জাতিক আইন অমান্য করে সিরিয়ার ওপর ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালানোর মাধ্যমে দেশটিকে বিভক্ত করার চেষ্টা করছে বলে অভিযোগ করেছেন রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সার্গেই লাভরভ।

সিরিয়ার গৃহযুদ্ধ নিয়ে আলোচনার জন্য শনিবার মস্কোয় তুরস্ক ও ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের সঙ্গে বৈঠককালে লাভরভ এই অভিযোগ করেন। সাত বছরের এ যুদ্ধে হাজার হাজার লোক হতাহত হন।

আসন্ন আস্তানা বৈঠকের নবম রাউন্ডের পূর্ব প্রস্তুতি হিসেবে এই বৈঠকের আয়োজন করা হয়, যা আগামী মাসে কাজাখস্তানে অনুষ্ঠিত হবে। এতে সিরিয়ার রাজনৈতিক ও মানবিক বিষয়গুলোকে অগ্রাধিকার দেয়া হবে।

সিরিয়ার সরকার ও বিদ্রোহীদের মধ্যে আলোচনা অনুষ্ঠানের জন্য জামিনদার রাষ্ট্র হিসেবে রাশিয়া, ইরান ও তুরস্ক কাজ করছে।

রাষ্ট্র তিনটি বলছে, সিরিয়ার সহিংসতা দূর করার একমাত্র পথ হচ্ছে আস্তানা আলোচনার বাস্তবায়ন।

‘মধ্যপ্রাচ্যের পুনঃসংস্কার’
বৈঠকে সিরিয়ার সার্বভৌমত্ব ও অখণ্ডতা অক্ষুণ্ন রাখতে তিন দেশের মন্ত্রীরা একমত পোষণ করেন।

লাভরভ বলেন, ‘সিরিয়ার আঞ্চলিক অখণ্ডতার সমর্থনে আমেরিকার বিবৃতিতে মনে হচ্ছে তারা মধ্যপ্রাচ্যকে পুনর্গঠন এবং সিরিয়াকে কয়েকটি অংশে বিভক্ত করার পরিকল্পনা নিয়েছে।’

তিনি আরো বলেন, ‘আমেরিকার এই পরিকল্পনা রুখে দিতে ইরান এবং তুরস্ক একত্রে কাজ করবে।’

রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা যখন শান্তির সুযোগ তৈরি করছি, তখন কয়েকটি রাষ্ট্র আমাদের যৌথ প্রচেষ্টার ফলাফলকে ধ্বংসের চেষ্টা করছে। এমনকি তারা আন্তর্জাতিক নীতিমালাও অনুসরণ করছে না।’

তিনি অভিযোগ করে বলেন, ‘সিরিয়ার বিরুদ্ধে আমেরিকা, যুক্তরাজ্য ও ফ্রান্স আন্তর্জাতিক নীতিমালা অমান্য করে সম্প্রতি হামলা চালিয়েছে।’

সিরিয়ার সরকারি বাহিনী সম্প্রতি বিদ্রোহী নিয়ন্ত্রিত ডৌমায় সন্দেহভাজন রাসায়নিক হামলা চালায় বলে মানবাধিকার সংস্থাগুলোর অভিযোগ। দেশটির সন্দেহজনক রাসায়নিক অস্ত্রের স্থাপনাসমূহ লক্ষ্য করে গত ১৪ এপ্রিল দেশ তিনটি সিরিয়ার ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালায়।

এ সম্পর্কে লাভরভ বলেন, ‘সিরিয়ার ওপর মার্কিন নেতৃত্বাধীন ক্ষেপণাস্ত্র হামলা পরিস্থিতিকে আরো জটিল করে দিয়েছে।’

বৈঠকে তুর্কি পররাষ্ট্রমন্ত্রী মেভলুত ক্যাভুসোগ্লু বলেন, ‘সিরিয়ায় একটি গ্রহণযোগ্য রাজনৈতিক সমাধানে জাতিসংঘের কাজ করা উচিত এবং যেকোনো ধরনের সামরিক হস্তক্ষেপ হবে অবৈধ ও অস্থিতিশীল।’

উল্লেখ্য, সিরিয়া সংকটের সমাধান নিয়ে নানা আলোচনা হলেও বিভক্তি দেখা দিয়েছে দেশটির প্রেসিডেন্ট বাশার আল আসাদকে নিয়ে। কারণ রাশিয়া ও ইরান বাশারকে ক্ষমতায় রেখেই সমাধানের পক্ষে। অন্যদিকে, মার্কিন নেতৃত্বাধীন জোট, আসাদ বিরোধীরা, এমনকি তুরস্কও, আসাদকে বাদ দিয়ে এ সমস্যার রাজনৈতিক সমাধান চায়। সূত্র: আল জাজিরা

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এ জাতীয় আরো খবর..

ফেসবুকে আমরা...